বি. চৌধুরী রাষ্ট্রপতি, ড. কামাল প্রধানমন্ত্রী হতে চান, বিব্রত বিএনপি

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৩১ আগস্ট, ২০১৮

জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করতে গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনকে বিএনপির পক্ষ থেকে লিখিত প্রস্তাবের পর বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ডা. এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং ড. কামাল হোসেন বিএনপিকে কিছু শর্ত দিয়েছেন বলে বিএনপি এবং ২০ দলীয় জোটের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে। বি. চৌধুরী এবং ড. কামালের দেয়া শর্তগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য শর্ত হলো- আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করে যদি বিএনপি নির্বাচনে জয় লাভ করে তবে ওই সরকারের রাষ্ট্রপতি করতে হবে এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে এবং প্রধানমন্ত্রীত্ব দিতে হবে ড. কামাল হোসেনকে।

সূত্রটি জানায়, সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে ২০ দলীয় জোটের বাইরে সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টির ডাক দিয়েছে বিএনপি। এ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে ইতিমধ্যে বি. চৌধুরী, ড. কামাল, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম রব ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার সঙ্গে একাধিকবার বৈঠকও করেছে বিএনপি। এজন্য ড. কামালকে ১০ দফা লিখিত প্রস্তাবও দিয়েছে। যদিও জাতীয় ঐক্যের ডাককে ষড়যন্ত্র বলে আখ্যা দিয়ে বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী তা প্রত্যাখান করেছেন। এছাড়া শেষ পর্যন্ত জাতীয় ঐক্য হওয়া- না হওয়া নিয়ে এরইমধ্যে সংশয় দাঁনা বেঁধেছে বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের অভ্যন্তরে।

এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপি ও ২০ দলীয় জোটের দু’জন নেতা বলেন, শেষ পর্যন্ত জাতীয় ঐক্য হওয়াটা খুবই কঠিন। কারণ বি. চৌধুরী ও ড. কামালের দাবি বিএনপির পক্ষে মেনে নেওয়াটা খুব কঠিন। বি. চৌধুরীর রাষ্ট্রপতি এবং ড. কামালের প্রধানমন্ত্রী হতে চাওয়ার প্রশ্নে বিব্রত বিএনপি। বিএনপি চাচ্ছে, তাদের নিয়ে বৃহত্তর একটি ঐক্য হোক। এই ঐক্যের নেতৃত্বে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াই থাকবেন। তবে বেগম জিয়ার অনুপস্থিতিতে বি. চৌধুরী কিংবা ড. কামাল নেতৃত্ব দেবেন। সুতরাং বি. চৌধুরীরা ঘোলা পানিতে যে মাছ শিকার করার চেষ্টা করছেন, তা শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হবে বলেই প্রতিয়মান হচ্ছে।

সূত্র আরও জানায়, সেপ্টেম্বর পরেই জাতীয় সরকার গঠন হওয়া কথা রয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে বি. চৌধুরী ও ড. কামালদের রাজনৈতিক মাঠে আন্দোলন করার মতো উল্লেখযোগ্য কোনো শক্তি নেই। আবার বিএনপির যে কয়েকজন শীর্ষ নেতা জাতীয় ঐক্য গঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ত রয়েছেন, তার মধ্যে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অন্যতম। আর মির্জা ফখরুল কারাগারে চলে গেলে এই প্রক্রিয়া দেখার মতো কেউ নেই। আর মির্জা ফখরুলের কারাগারে যাওয়ার মতো যথেষ্ট কারণ রয়েছে। কেননা তার বিরুদ্ধে অংসংখ্য মামলা চলমান। সুতরাং ঐক্য হওয়া মুশকিল!

এ বিষয়ে কল্যাণ পার্টির মহাসচিব এম এম আমিনুর রহমান বলেন, বি. চৌধুরী ও ড. কামাল যদি নেতৃত্ব কুক্ষিগত করতে চান তাহলে এই ঐক্য প্রক্রিয়া সফল হবে না। এটা তাদেরকে বিবেচনায় আনতে হবে। এখানে বিএনপিরও ভাববার অবকাশ রয়েছে।

vorerpata

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

ফেসবুকে আমরা …