সংবাদ শিরোনামঃ
বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড পৃথিবীর সব চেয়ে নৃশংস রাজনৈতিক ঘটনা: সেতুমন্ত্রী চকরিয়া প্রেসক্লাবের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন জাহেদ চৌধুরী সভাপতি, মিজবাউল হক সম্পাদক নিউইয়র্কে লাঞ্ছিত ইমরান এইচ সরকার (ভিডিও) ঠাকুরগাঁও জেলা পুলিশের সহযোগীতায় গড়েয়া গরুর হাটে জাল নোট সনাক্তকরণ বুথ দেবীগঞ্জে জাতীয় শোক দিবস পালিত এ দেশের মানুষকে কেউ দাস বানিয়ে রাখতে পারবে না: ড. কামাল বীরগঞ্জে এতিম ও ছিন্নমূল শতাধিক পথ শিশুদের  মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ বান্দরবানে ইয়াংছা-বনপুর সড়ক যেন মরণফাঁদ ! লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের শোক র‌্যালী ভ্যান চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নামে জমি, এরপর…



অসময়ে ঠাকুরগাঁওয়ের গাছে গাছে কুলের সমারোহ

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১০ আগস্ট, ২০১৮

এবার বর্ষাকালে ঠাকুরগাঁওয়ের গাছে গাছে ঘটেছে কুলের (বরই) সমারোহ। কুলের ভারে গাছগুলো নুয়ে পড়েছে। আম-জাম-কাঁঠালের শেষে অসময়ে বরই পেয়ে অবাক হচ্ছে এলাকার মানুষ।

জানা গেছে, সাধারণত সেপ্টেম্বর ও অক্টোবরে ফুল আসে কুল গাছে। ফল ধরে শীতে। তবে এবার বর্ষা মৌসুমে ঠাকুরগাঁও শহরের কালিবাড়ী ও পূর্ব হাজীপাড়া সহ শহরের বিভিন্ন মহল্লায় দেশীয় জাতের শতাধিক গাছে ধরেছে কুল থোকা থোকা। গত বছরেও এ সময়ে এসব মহল্লায় গাছে গাছে ধরেছিল কুল। এসব গাছগুলোর বয়স প্রায় ৭ থেকে ১০ বছর। শীত মৌসুমেও প্রতি বছর এ গাছগুলোতে কুল আসে ব্যাপক হারে । আকারে মাঝারি। খেতেও সুস্বাদু। তবে এ সময়ে কুল আসায় ফল গুলো বড় হওয়ার আগেই খাচ্ছে শিশু-কিশোররা।
কালিবাড়ী মহল্লার আশরাফুল জানান, তার গাছে এবার আকস্মিক ভাবে বর্ষা কালে কুল ধরেছে। এতে তিনি অবাক হয়েছেন।
ঐ মহল্লার স্কুল শিক্ষক আফরোজা বেগম রিকা জানান, তার বাড়ির পাশে আরেকটি গাছে কয়েক বছর ধরে শীত ও বর্ষা কালে কুল পাওয়া যায়।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাবেক উপ-পরিচালক কৃষিবিদ সফিউল ইসলাম বলেন, আবহাওয়া পরিবর্তনের জন্য এই গাছ গুলোতে সম্ভবত এ সময় কুল ধরেছে। তবে তিনি জানান, কুল ছাড়া পেয়ারাও এখন বছর জুড়ে গাছে পাওয়া যাচ্ছে।

ঠাকুরগাঁও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আফতাব হোসেন বলেন, কুল গাছগুলোতে ফল আসলেও প্রতিকুল আবহাওয়ায় পরিপক্ক হওয়ার আগেই ঝরে যাচ্ছে। তবে তিনি বলেন, এখন দেশে গ্রীষ্মকালে টমেটো ও পেঁয়াজ চাষ হচ্ছে। অনুরুপ
গবেষণার মাধ্যমে কুল গ্রীষ্ম বা বর্ষাকালে চাষ করা সম্ভব।
সারা বছর দেশীয় ফল কুল উৎপাদন করতে পারলে সি জাতীয় পুষ্টির চাহিদা মিটিয়ে রপ্তানি করা গেলে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করা সম্ভব বলে এমনটাই দাবি করছেন স্থানীয়রা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

ফেসবুকে আমরা …