সংবাদ শিরোনামঃ
ভোলার উওর দিঘলদীতে চাঁদা না দেওয়ায় প্রবাসির উপর হামলা আহত : ১ বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড পৃথিবীর সব চেয়ে নৃশংস রাজনৈতিক ঘটনা: সেতুমন্ত্রী চকরিয়া প্রেসক্লাবের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন জাহেদ চৌধুরী সভাপতি, মিজবাউল হক সম্পাদক নিউইয়র্কে লাঞ্ছিত ইমরান এইচ সরকার (ভিডিও) ঠাকুরগাঁও জেলা পুলিশের সহযোগীতায় গড়েয়া গরুর হাটে জাল নোট সনাক্তকরণ বুথ দেবীগঞ্জে জাতীয় শোক দিবস পালিত এ দেশের মানুষকে কেউ দাস বানিয়ে রাখতে পারবে না: ড. কামাল বীরগঞ্জে এতিম ও ছিন্নমূল শতাধিক পথ শিশুদের  মাঝে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ বান্দরবানে ইয়াংছা-বনপুর সড়ক যেন মরণফাঁদ ! লোহাগাড়া উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের শোক র‌্যালী



ঠাকুরগাঁওয়ে গৃহবধূর মৃত্যুকে ঘিরে এলাকায় চাঞ্চল্য, স্বামী পালাতক (ভিডিও)

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৯ আগস্ট, ২০১৮

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি :: ঠাকুরগাঁও সদর ১০ নং জামালপুর ইউনিয়নের পশ্চিম পারপুগি গ্রামের ফাহমিদা আক্তার (মামনি) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। বুধবার সন্ধ্যা ৬ টার সময় এই ঘটনা ঘটে। মৃত ফাহমিদা আক্তার (মামনি)-কে স্বামীর বাড়িতে হত্যা করা হয়েছে বলে তার বাবা মায়ের দাবী।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও সদর থানায় ফাহমিদা আক্তার (মামনি)’র মা রসবা বেগম বাদী হয়ে তার স্বামী আব্দুল হান্নান (রুপাই)-কে ১নং আসামি করে মোট ৭ জনের নামে একটি চলমান মামলা করা হয়েছে।

বাবা-মা সুত্রে জানা যায়, প্রায় ১২ বছর পুর্বে ফাহমিদা আক্তার (মামনি) ও ঠাকুরগাঁও সদর থানার মহেশালি গ্রামের আব্দুল হান্নান (রুপাই) এর ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক বিয়ে হয়। তাদের দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে। বড় মেয়ে রিয়ার বয়স ৮ বছর ও ছোট মে সিয়ার বয়স ২ বছর। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য আব্দুল হান্নান (রুপাই) সহ তার পরিবারের লোকজন ফাহমিদা আক্তার (মামনি)’র উপর অমানবিক অত্যাচার করত বলে জানা যায়। এ নিয়ে এলাকায় উভয় পরিবারের মধ্যে চেয়ারম্যান, মেম্বারের মাধ্যমে বিচার ও সালিশি হয়। তারই ধারাবাহিকতায় গত রমজান মাসের আগে ফাহমিদা আক্তার (মামনি)-কে তার শশুর বাড়ি থেকে বের করে চেয়ারম্যানের হাওলায় রাখে বলে জানা যায়। কিছু দিন পরে এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বারের মাধ্যমে আবার ফাহমিদা আক্তার (মামনি)-কে তার স্বামীর বাড়িতে পাঠানো হয়। কিন্তু তার পরেও ফাহমিদা আক্তার (মামনি)’র উপর জুলুম অত্যাচার কমেনি এবং শেষ পরিণতি হিসেবে মামনি বেছে নিল আত্তহতি। আর বাবা মা ও এলাকাবাসির অভিযোগ তাকে নির্যাতন করে মেরে ফেলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, মৃত্যুর পর মামনির শরীরের বিভিন্ন জায়গায় (মুখে, মাথায়, গলায়, পায়ে ও বুকে) নির্যাতনের চিহ্ন পাওয়া যায়।

হাসপাতাল সুত্রে জানা যায়, মেয়েটি বিষাক্ত কিছু খেয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে এসেছিল। আমরা তাকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিয়ে ভর্তি করে দেই। এর কিছুক্ষণ পরেই তার মৃত্যু হয়।

এ বিষয়ে ১০ জামালপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান (বীর মুক্তিযদ্ধা) নজরুল ইসলামের সাথে কথা বললে তিনি জানান, অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুর জন্য আমি দুঃখিত ও মর্মাহত। তিনি আরও বলেন, এই পরিবারটির বিয়ের পর থেকেই ঝগড়া-ঝাটি লেগেই ছিল। আমি ও আমার মেম্বার একাধিকবার বিচার সালিশি করেছি। মৃত্যুর দিন সকাল ১০ টায় সে আমাকে ফোনে তার স্বামীর নামে অভিযোগ করেছিল।

এলাকাবাসির সাথে কথা বলে জানা যায়, ফাহমিদা আক্তার (মামনি)-কে অমানবিক ভাবে অত্যাচার করার পর তার স্বামী সহ পরিবারের লোকজনেরা তাকে হত্যা করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। কিন্তু তার স্বামী হাসপাতালে ভর্তির সময় বিষ খাওয়ার কথা বলে ভর্তি (চিকিৎসা) করায়।

ময়না তদন্ত শেষে আজ বৃহস্পতিবার বিকালের দিকে মৃত মামনির লাশ তার বাবার বাড়িতে নিয়ে গেলে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

লাশ বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার পর আমাদের প্রতিনিধি সেখানে গিয়ে তার মায়ের সাথে কথা বলতে গেলে কাঁদতে কাঁদতে তিনি বলেন, “আমার মেয়েকে ওরা মারে ফেলাইছে”। একথা বলার পর তিনি আর কথা বলার মত অবস্থায় ছিলেন না এবং অজ্ঞান হয়ে পরেন। এছাড়াও ফাহমিদা আক্তার (মামনি)’র বাবা, ভাই, মামাত বড় ভাই সহ এলাকার গণ্যমান্য লোকজনের সাথে কথা বললে সবাই একই কথা বলে যে, তাকে মেরে ফেলা হয়েছে।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও সদর থানার তদন্ত অফিসার (ওসি) রওশন আরা বলেন, অভিযোগ পেয়েছি এবং ১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মৃতের স্বামী সহ বাকিরা সবাই পলাতক রয়েছে। তাদের ধরতে অভিযান চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

ফেসবুকে আমরা …