ট্রাম্প প্রশাসনে তদবির চালাতে যুক্তএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে ‘লবিস্ট’ নিয়োগ করেছে বিএনপি। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গণমাধ্যম দ্য পলিটিকোর খবরে এ কথা জানানো হয়েছে। খবরে বলা হয়েছে, আবদুস সাত্তার নামের এক ব্যক্তি বিএনপির পক্ষ থেকে ‘ব্লু স্টার স্ট্র্যাটেজিক’ ও রাস্কি পার্টনার্স’ নামে দুটি প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দিয়েছেন। চুক্তি অনুযায়ী ‘ব্লু স্টার’কে আগস্ট মাসে ২০ হাজার ডলার এবং বছরের বাকি মাসগুলোয় ৩৫ হাজার ডলার করে দিতে হবে। রাস্কি পার্টনার্স ব্লু স্টারের সাব-কন্ট্রাক্ট হিসেবে কাজ করবে। এই প্রতিষ্ঠানটি আগস্টের জন্য পাবে ১০ হাজার ডলার এবং বাকি মাসগুলোর জন্য পাবে ১৫ হাজার ডলার। পলিটিকোর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ব্লু স্টার স্ট্র্যাটেজিস’ বিএনপির পক্ষে বিভিন্ন বার্তা তৈরি করে তা যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছে দেবে, যা বিএনপির পক্ষে কাজ করতে সাহায্য করবে। পলিটিকো হোয়াইট হাউজ, কংগ্রেস, প্রশাসনসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থায় অর্থের বিনিময়ে তদবিরকারীদের যোগ্যতা, সক্ষমতা এবং কাজের গতিপ্রকৃতি পর্যবেক্ষণ করে নিয়মিতভাবে প্রতিবেদন প্রকাশ করে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় বিএনপির লবিস্ট নিয়োগের কথা প্রকাশ করেছে। পলিটিকোর প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ২০০৯ সাল থেকে বাংলাদেশের ক্ষমতায় রয়েছে বিএনপির প্রধান রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ। ২০১৭ সালে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এক প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, বিএনপি নেতাদের অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে আটকে রাখা ও হত্যার সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও জড়িত রয়েছে। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে তা অস্বীকার করা হয়েছে। লবিস্ট নিয়োগ প্রসঙ্গে আবদুস সাত্তার বলেন, ‘ওরা হয়তো আমার নামটি ভুল করে দিয়েছে। আমি প্রশাসনিক কিছু কাজ করে থাকি। দলীয় কোনো কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত নই। বিষয়টি আমিও জানতে পেরেছি। তবে আমার সম্পৃক্ততা থাকার বিষয়টি সঠিক নয়।’ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। এগুলো নিয়ে ঢাকায় কোনো আলোচনা হয় না।’রাষ্ট্রে ‘লবিস্ট’ নিয়োগ করেছে ‘বিএনপি’

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষার জন্য  যুক্তরাষ্ট্রে ‘লবিস্ট’ নিয়োগ করেছে বিএনপি। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গণমাধ্যম দ্য পলিটিকোর খবরে এ কথা জানানো হয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, আবদুস সাত্তার নামের এক ব্যক্তি বিএনপির পক্ষ থেকে ‘ব্লু স্টার স্ট্র্যাটেজিক’ ও রাস্কি পার্টনার্স’ নামে দুটি প্রতিষ্ঠানকে নিয়োগ দিয়েছেন। চুক্তি অনুযায়ী ‘ব্লু স্টার’কে আগস্ট মাসে ২০ হাজার ডলার এবং বছরের বাকি মাসগুলোয় ৩৫ হাজার ডলার করে দিতে হবে। রাস্কি পার্টনার্স ব্লু স্টারের সাব-কন্ট্রাক্ট হিসেবে কাজ করবে। এই প্রতিষ্ঠানটি আগস্টের জন্য পাবে ১০ হাজার ডলার এবং বাকি মাসগুলোর জন্য পাবে ১৫ হাজার ডলার।

পলিটিকোর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘ব্লু স্টার স্ট্র্যাটেজিস’ বিএনপির পক্ষে বিভিন্ন বার্তা তৈরি করে তা যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের কর্মকর্তাদের কাছে পৌঁছে দেবে, যা বিএনপির পক্ষে কাজ করতে সাহায্য করবে।

পলিটিকো হোয়াইট হাউজ, কংগ্রেস, প্রশাসনসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থায় অর্থের বিনিময়ে তদবিরকারীদের যোগ্যতা, সক্ষমতা এবং কাজের গতিপ্রকৃতি পর্যবেক্ষণ করে নিয়মিতভাবে প্রতিবেদন প্রকাশ করে থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় বিএনপির লবিস্ট নিয়োগের কথা প্রকাশ করেছে।

পলিটিকোর প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ২০০৯ সাল থেকে বাংলাদেশের ক্ষমতায় রয়েছে বিএনপির প্রধান রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ। ২০১৭ সালে হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এক প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ করে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, বিএনপি নেতাদের অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে আটকে রাখা ও হত্যার সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও জড়িত রয়েছে। যদিও সরকারের পক্ষ থেকে তা অস্বীকার করা হয়েছে।

লবিস্ট নিয়োগ প্রসঙ্গে আবদুস সাত্তার  বলেন, ‘ওরা হয়তো আমার নামটি ভুল করে দিয়েছে। আমি প্রশাসনিক কিছু কাজ করে থাকি। দলীয় কোনো কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত নই। বিষয়টি আমিও জানতে পেরেছি। তবে আমার সম্পৃক্ততা থাকার বিষয়টি সঠিক নয়।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন  বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। এগুলো নিয়ে ঢাকায় কোনো আলোচনা হয় না।

সূত্র: সময়ের কন্ঠস্বর।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

ফেসবুকে আমরা …